1. aleyaa31a16@gmail.com : Aleyaa 31 : Aleyaa 31
  2. sajedurrahmanshohan@gmail.com : Sajedur Shohan : Sajedur Shohan
  3. sejanahmed017@gmail.com : Sijan Sarkar : Sijan Sarkar
  4. sohan75632@gmail.com : Sohanur Rahman : Sohanur Rahman
  5. multicare.net@gmail.com : নর্থ এক্সপ্রেস :
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৮:১৩ অপরাহ্ন

হাইকোর্টে ১১০ কোটি টাকায় চার তলা মসজিদ হবে

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত: বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৩৫ বার পড়া হয়েছে

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে অবস্থিত হাইকোর্ট মসজিদ চার তলা করা হচ্ছে। রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র রমনায় অবস্থিত বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্টে কর্মরত ও সুপ্রিম কোর্ট এলাকায় আসা মুসলিমদের নামাজ আদায় সহজ ও স্বাচ্ছন্দময় করতেই মসজিদটিকে চার তলা করা হচ্ছে। এর ফলে এখানে ধর্ম চর্চার পাশাপাশি ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণসহ নানাবিধ কার্যক্রমের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি হবে। এসব কারণেই এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে আইন ও বিচার বিভাগ। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আইন ও বিচার বিভাগের উদ্যোগে গ্রহণ করা এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) অনুমোদন করা হয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে। ‘বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে অবস্থিত মাজার মসজিদ নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১১০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। সরকারের সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে গৃীহিত প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে আইন ও বিচার বিভাগ (ডেলিগেটেড ওয়ার্ক গণপূর্ত অধিদপ্তর)। চলতি সেপ্টেম্বরে শুরু হওয়া প্রকল্পটি ২০২৫ সাল নাগাদ শতভাগ বাস্তবায়ন হবে।

আইন মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, সুপ্রিম কোর্টে কর্মরত ও সুপ্রিম কোর্ট এলাকায় আসা মুসলিম জনগোষ্ঠীর জন্য নামাজ আদায়, ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ ও অনুশীলন ইত্যাদি কার্যক্রমের সুযোগ সৃষ্টি করা, ধর্মীয় চর্চার ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ সবার অংশগ্রহণের ব্যবস্থা রাখা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই এ প্রকল্পের মুল উদ্দেশ্য।

এদিকে পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের আওতায় ১৫ হাজার ২২৬ দশমিক ৬৮ বর্গমিটার আয়তন ও দুটি বেজমেন্ট বিশিষ্ট চার তলা মসজিদ ভবন নির্মাণ করা হবে। নতুন মসজিদ ভবন পুরোপুরি নির্মিত না হওয়া পর্যন্ত ১ হাজার ২৫০ বর্গমিটার পাকা, আধা পাকা টিন শেড এ মসজিদের অস্থায়ী স্থানান্তর করা হবে। বহিঃস্থ বিদ্যুতায়ন করা হবে। মসজিদের জন্য আসবাবপত্র কেনা হবে এবং মসজিদ ক্যাম্পাসে গড়ে তোলা হবে আরবরিকালচার (সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য বিভিন্ন রকমের গাছ লাগানো ও এ সংক্রান্ত ব্যবস্থাপনা)।

সূত্র আরও জানায়, প্রকল্পটি চলতি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের এডিপিতে বরাদ্দবিহীনভাবে অনুমোদিত প্রকল্প তালিকায় অন্তর্ভুক্ত আছে। সরকারের অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার অধ্যায়-১৩, অনুচ্ছেদ-১৩.৪.২ এ বর্ণিত লক্ষ্য বাংলাদেশের ঐতিহাসিক মসজিদ, মন্দির, প্যাগোডা, গির্জা প্রভৃতি সংস্কার মেরামত ও নির্মাণ করার সঙ্গে প্রকল্পটি সম্পর্কযুক্ত।

জানতে চাইলে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানিয়েছেন, প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মামলা সংক্রান্ত কাজে হাইকোর্টে আসেন। এবং অনেকেই নামাজ আদায়ের জন্য এই মসজিদে আসেন। আগত মুসল্লির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় নামাজের স্থানের সংকুলান হচ্ছিল না। ফলে মসজিদের সম্প্রসারণ জরুরি হয়ে পড়েছিল। সে বিষযটিকে গুরুত্ব দিয়ে এখানে একটি নতুন মসজিদ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এখন এখানে হবে দুটি বেজমেন্টসহ চারতলা মসজিদ। এর ফলে মুসল্লিরা নামাজ আদায়ে স্বাচ্ছন্দ অনুভব করবেন। একই সঙ্গে এখানে  ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ ও অনুশীলন ইত্যাদি কার্যক্রমের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© নর্থ এক্সপ্রেস নিউজ কর্তৃক সকল স্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট